1. babuibasa@gmail.com : editor :
  2. rokunkutubdia@gmail.com : reporter :
  3. rokunkutubdia@yahoo.com : Rokiot Ullah : Rokiot Ullah
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০১:৫৬ অপরাহ্ন

চেয়ারম্যান তারেকের বাড়িতে সামাজিক দাওয়াতে মহেশখালীর শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তারা

  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ২ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৮ জন সংবাদটি পড়েছেন

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

কক্সবাজার জেলার প্রথম শহীদ পরিবারের সদস্য কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের তরুন জনপ্রিয় চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফের আমন্ত্রণে অংশ গ্রহন করেছেন মহেশখালী এ.এসপি মহেশখালী সার্কেল মোঃ জাহেদুল ইসলাস ও মহেশখালী থানার ওসি মোঃ আব্দুল হাই।মহেশখালী থানার ওসি মোঃ আব্দুল হাই সহ-পরিবারে চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফের বাড়ীতে দাওয়াতে অংশ গ্রহন করেছেন। কালারমারছড়ার জনপ্রিয় তরুণ চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফের সামাজিক দাওয়াতে আসায়
মহেশখালী এএসপি মহেশখালী সার্কেল মোঃ জাহেদুল ইসলাস ও মহেশখালী থানার ওসি মোঃ আব্দুল হাই কে পরিবারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তারেক চেয়ারম্যানের সামাজিক দাওয়াতে আরো অংশ গ্রহন করেন কালারমারছড়া সরকারী হাসপালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইসমত আরা,কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের কর্মকর্তা, কর্মচারী, আলেম সমাজ,শিক্ষক সমাজ,রাজনৈতিক ব্যক্তি,কৃষক,শ্রমিকও বিভিন্ন পেশার মানুষ।
২৯ মার্চ মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সফল চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের তৎকালীন সহ-সভাপতি এবং কক্সবাজার জেলার মুক্তিযুদ্ধে প্রথম শহীদ মো. শরীফ চেয়ারম্যানের পুত্র ওসমান গণি চেয়ারম্যান হত্যার ৯ বছর পূর্ণ হয়েছিল । ২০১২ সালের এই দিনে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা নিজ অফিসে কুপিয়ে ও গুলি করে নির্মমভাবে তাঁকে হত্যা করেন। এই হত্যার ঘটনায় পুরো জেলাজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছিল। এমনকি দলের কেন্দ্র পর্যায় ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

মহেশখালীর সাধারণ লোকজনের ভাষ্য,ওসমান চেয়ারম্যান সাধারণ মানুষকে অনেক ভালোবাসতেন। বিশেষ করে দক্ষিণ মহেশখালী নেতাদের অবহেলা ও নির্যাতনের বিষয়ে তিনি একমাত্র সরাসরি প্রতিবাদ করতেন। তাই তাদের পরিকল্পনায় তাকে হত্যা করে একটি বজ্র প্রতিবাদী ব্যক্তিত্বকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে।

শহীদ ওসমান চেয়ারম্যানের কনিষ্ঠ পুত্র কালারমারছড়ার ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান তারেক শরীফ বলেন, আমার বাবা একজন ত্যাগী ও জনদরদি নেতা ছিলেন। তিনি অন্যায় ও সাধারণ মানুষের অধিকার নিয়ে সব সময় সোচ্চার ছিলেন। এতে সুবিধা করতে না পেরে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতা যোগসাজস করে আমার বাবাকে অত্যন্ত নির্মমভাবে হত্যা করেছে । গত ২৯ মার্চ আমার পিতার ৯ম মৃত্যু বার্ষিকীতে খতমে কোরআন, মিলাত মাহফিলও ইছালে সওয়াব মাহফিলের আয়োজন করেছি। প্রতি বছর আমার বাবার মৃত্যু বার্ষিকীতে সাধারণ ৫০/৬০ হাজার মানুষের জন্য মেজবানের আয়োজন করে থাকি। কিন্তু এ বার বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে ২ এপ্রিল সীমিত পরিসরে সামাজিক ভাবে দাওয়াতে আয়োজন করেছি। সকলে আমার মরহুম পিতা শহীদ ওসমান চেয়ারম্যানের জন্য দোয়া করবেন।

আপনি সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ চট্টগ্রাম টুডে কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews
error: Content is protected !!