1. babuibasa@gmail.com : editor :
  2. rokunkutubdia@gmail.com : reporter :
  3. rokunkutubdia@yahoo.com : Rokiot Ullah : Rokiot Ullah
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৪:২৪ অপরাহ্ন

পেকুয়ার টইটংয়ে আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে সক্রিয় হতে পারে দা-বাহিনী

  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১
  • ২৬ জন সংবাদটি পড়েছেন

নাজিম উদ্দিন, পেকুয়া:

আগামি ৩মার্চ বুধবার ঘোষনা করা হচ্ছে কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী তফসিল। এছাড়া তফসিল ছাড়াও শূন্য আসনের এই ইউপির নির্বাচন আগামি ৭ অথবা ১১ এপ্রিল হতে পারে। বিষয়টি পেকুয়া উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্র থেকে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তথ্য সূত্রে জানা গেছে, সরকারি চাল আত্মসাতের অভিযোগ এনে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরীকে চেয়ারম্যান পদ থেকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয়। একই সাথে গত বছরের ২৯ জুলাই এক আদেশে আসনটি শুন্য ঘোষণা করে নির্বাচন অফিস। সেই থেকে তিন মাসের ভিতর নির্বাচন করার বিধি থাকলেও এতদিন তা হয়নি।

শেষ পর্যন্ত দীর্ঘ ৮মাস পর শুন্য আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। জানা গেছে, টইটং ইউনিয়নে ৯টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। তার মধ্যে ১নং ওয়ার্ডের কাছেমুল উলুম নুরানী মাদ্রাসা, ২নং ওয়ার্ডে বটতলি শফিকীয়া মাদ্রাসা, ৩ নং ওয়ার্ডে টইটং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৪ নং ওয়ার্ডে বনকানন এরশাদুল উলুম মাদ্রাসা, ৫নং ওয়ার্ডে টইটং ইউনিয়ন পরিষদ, ৬নং ওয়ার্ডে নাপিতখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৭ নং ওয়ার্ডে পূর্ব সোনাইছড়ি ইবদেতায়ী মাদ্রাসা, ৮ নং ওয়ার্ডে পশ্চিম সোনাইছড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৯নং ওয়ার্ডে ধনিয়াকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এর মধ্যে কাছেমুল উলুম মাদ্রাসা ও টইটং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের দুরুত্ব ১শ গজের মধ্যে। অথচ দীর্ঘ বছর ধরে এ কেন্দ্রটি শের আলী মাস্টার পাড়ার এবাদত খানায় ছিল। দুটি কেন্দ্র পাশাপাশি হয়ে যাওয়ায় ভোটের সময় আইনশৃঙ্খলার অবনতির শংকা করছে বেশ কয়েকজন প্রার্থী। তাদের দাবী কাছেমুল উলুম মাদ্রাসা কেন্দ্রটি অন্য জায়গায় স্থানান্তর করা হউক।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সারা বাংলাদেশে স্থায়ী নির্বাচনের অংশ হিসাবে ১ম ধাপে পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউপির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ৩ মার্চ তফসিল ঘোষণা করা হবে। সম্ভাব্য তারিখ ৭ অথবা ১১ এপ্রিল ভোট অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে টইটং ইউপির নির্বাচনের প্রাথমিক সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় ভোটারেরা ভিন্ন ভিন্ন মত পোষন করেন। পাশাপাশি প্রার্থীরা যার যার মত করে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন। নৌকার মনোনয়নের জন্য দৌঁড় শুরু করেছেন একাধিক প্রার্থী।

সাবেক চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলামও দৌঁড়াদৌঁড়ি শুরু করেছেন। তবে তার পিছনে রয়েছে সন্ত্রাসবাদ ও চাল চুরির তকমা।সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ বিএ, টইটং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ছরওয়ার কামাল চৌধুরী, পেকুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক জুবাইদুল্লাহ লিটন, ছাত্রলীগের বতর্মান কমিটির সহ-সভাপতি মেহেদি হাসান ফরায়েজী নৌকা প্রতীকের জন্য তদবির শুরু করেছেন। ১ম ধাপের স্থানীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হওয়ার আগেই বিএনপির পক্ষ থেকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্বাচনে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোট করবেন সাবেক ইউপি সদস্য শাহাদাত হোছাইন, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মাস্টার জয়নাল আবেদীন এমনটি জানালেন বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতা।

পেকুয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তা মোঃ আবদুল হামিদ বলেন, আগামী বুধবার তফসিল ঘোষণার পর জানতে পারবো এপ্রিলের ৭ নাকি ১১ তারিখ ভোট হচ্ছে। আমরা দুইটি তারিখ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। ইনশাআল্লাহ সুষ্ট আর স্বাভাবিক নির্বাচন করার জন্য আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে। এদিকে নির্বাচনকে ঘিরে সাধারন জনগনের মধ্যে এক আতংকও পরিলক্ষিত হচ্ছে। তারা সুষ্ট ভোট গ্রহন নিয়ে এক অজানা আতংকে রয়েছে বলে জানান। এমনিতে টইটং ইউনিয়ন একটি আতংকের নাম। ডাকাত, সন্ত্রাস, অস্ত্রধারীদের দৌরত্ম বৃদ্ধি পেতে।

দা বাহিনীর সক্রিয় ক্যাডারদের আনাগোনা বেড়ে যাওয়া শংকা দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মাঝে। কারন দা বাহিনীর নিয়ন্ত্রকও নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে পারে। এছাড়া তার উপর ছায়ারমত আছে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা।

আপনি সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ চট্টগ্রাম টুডে কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews
error: Content is protected !!