1. babuibasa@gmail.com : editor :
  2. news24nazrul@gmail.com : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  3. rokunkutubdia@gmail.com : reporter :
  4. rokunkutubdia@yahoo.com : Rokiot Ullah : Rokiot Ullah
রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:২৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

কক্সবাজার পাহাড়তলীতে একটি মাদ্রাসায় ছাত্রকে বলৎকারের ঘটনায় প্রচারির সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৬ জন সংবাদটি পড়েছেন

 

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ গত কাল কক্সবাজারের স্থানীয় একটি অনলাইন গণমাধ্যমে কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী ইসলামপূর এলাকায় অবস্থিত আন্ওয়ারুল উলুম তাহ্ফিজুল কোরআন হেফ্জখানা ও এতিম খানার এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্র বলৎকারের ঘটনায় সংবাদ প্রচারিত হয়। উক্ত সংবাদটি আমি হাফেজ আব্দুর রহিম এর দৃষ্টিগোচর হয়। উক্ত সংবাদে আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা ভিত্তিহীন মনগড়া কাল্পনিক ও অস্তিত্বহীন একটি নেক্কারজনক নোংরা ঘটনার সংবাদে আমি বিব্রত। সেই সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।এই রকম কোন ঘটনায় ও-ই দিন অত্র মাদ্রাসায় ঘটেনি।আসল কথা হলো একটি কুচক্রী মহল মাদ্রাসাটিকে বন্ধ করে দিয়ে মাদ্রাসার জমি দখলে নেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে।
চলতি বছরের ১আগষ্ট ২০২০ তারিখ ও-ই মাদ্রাসাটি স্থাপিত হয়। উক্ত মাদ্রাসাটিতে স্থানীয় কাউন্সিলর ও সমাজসেবকদের নিয়ে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়।তাদের পরামর্শ ও নির্দেশনায় প্রথম ধাপে নূরানী ও মক্তবে শিশু শিক্ষার্থীদের ভর্তি চলিতেছে। ছাত্র ভর্তির জন্য শর্ত ছিল ছবি, জন্মনিবন্ধন ও অভিভাবক সাক্ষর।এই নিয়মের বাহিরে যখন ছাত্র ভর্তি করাচ্ছিলাম না তখন এলাকার কিছু রোহিঙ্গা ও ভাড়াটিয়া লোক মাদ্রাসার বিরুদ্ধে অপপ্রচার শুরু করে।তারা বলতে লাগলো রোহিঙ্গা মৌলুভী দিয়ে জঙ্গিখানা খুলেছে।এ দাপে তারা সফল হতে না পেরে আবারও নতুন কৌশলে মাদ্রাসাটি বন্ধ করার পায়তারা চালাচ্ছেন ষড়যন্ত্রকারীরা।বর্তমানে ও-ই মাদ্রাসায় ১০-১৫ ছাত্রকে শিক্ষা দিচ্ছেন একজন শিক্ষক। আমি ও-ই মাদ্রাসাতে শিক্ষক হিসেবে নয় পরিচালক হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছি। নুরানী ও মক্তবের শিক্ষক হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন মোঃ আব্দুল আজিজ।নেক্কারজনক এ ঘটনার ভিক্টিম যে ছেলেটা,সে আমাদের মাদ্রাসার ছাত্রও না।সে ও-ই শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ত।সংবাদে উল্লিখিত গঠনের দিন শিক্ষক আবদুল আজিজ জরুরী প্রয়োজনে চট্টগ্রাম যাওয়ায়,ও-ই দিন আমি মাদ্রাসায় রাত যপন করি।ষড়যন্ত্রকারীরা এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ও-ই ছেলেকে দিয়ে আমার মত কোরআনে হাফেজকে বলৎকার এর মত অপরাধে জড়িয়ে আমাকে মাদ্রাসা থেকে বিতাড়িত করে মাদ্রাসার জমি দখলের অপচেষ্টা করছে। এতে করে আমাকে সমাজের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য সাংবাদিক ভাইদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার নামে সংবাদ প্রচার করেছে।আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি এ রকম কোন ঘটন ও-ই দিন মাদ্রাসায় ঘটেনি। এই মিথ্যা সংবাদে প্রশাসনসহ কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।অহেতুক বানোয়াট সংবাদ প্রচার করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় শিক্ষা থেকে বঞ্চিত না করারও অনুরোধ জানাচ্ছি।সাথে সাথে ও-ই সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী
হাফেজ মাওলানা আব্দুর রহিম

আপনি সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ চট্টগ্রাম টুডে কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews
error: Content is protected !!