1. babuibasa@gmail.com : editor :
  2. rokunkutubdia@gmail.com : reporter :
  3. rokunkutubdia@yahoo.com : Rokiot Ullah : Rokiot Ullah
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:১৭ অপরাহ্ন

শ্রদ্ধেয় ইউএনও জিয়াউল হক মীর স্যারের বিদায়ি অশ্রুসিক্ত বাণী কুতুবদিয়াবাসী প্রতি

  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৬৮ জন সংবাদটি পড়েছেন

 

নাজমুল হুদা সাকিব: কুতুবদিয়া প্রতিনিধি

“নামিবে আঁধার বেলা ফুরাবার ক্ষণে
মেঘ মাল্লা বৃষ্টিরও মনে মনে”

ভালো থাকুন প্রিয় কুতুবদিয়া উপজেলাবাসী!
উপজেলা নির্বাহী অফিসার, কুতুবদিয়া হিসেবে বিদায় নিয়ে কুতুবদিয়া ছেড়ে নতুন কর্মস্থল নোয়াখালী জেলার কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার ইউএনও হিসেবে যোগদানের উদ্দেশ্যে রওনা হচ্ছি….
বিদায় বেলায় প্রকৃতিও আজ বিষন্ন…সকাল থেকেই বৃষ্টি ছিল…এর মধ্যেও বিভিন্ন সংস্থা/সংগঠনের ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে বিদায় সংবর্ধনা নিতে হয়েছে। ভালোবেসে অনেকেই বিদায় সংবর্ধনা দিতে চেয়েছেন। আমার সময় স্বল্পতার কারণে অনেকের আবদার রাখতে পারিনি। তারপরও গত ৩ দিন ধরে অগণিত মানুষের ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে মানুষের ভালোবাসার কাছে হেরে গিয়ে উপজেলার ১৪ টি প্রতিষ্ঠানের/সংস্থা/সংগঠনের পক্ষ থেকে বিদায় সংবর্ধনা নিতে হয়েছে। অনেকের বিদায় সংবর্ধনা দেওয়ার আবদার রক্ষা করতে পারিনি বলে দুঃখ প্রকাশ করছি। বিদায়ের সময় বাংলো থেকে বের হয়ে দেখি উপজেলার জনসাধারণ, সকল স্টাফ আর অফিসারগণ সি অফ করার জন্য দাড়িয়ে আছে.. সবার চোখে কান্না…আমাকে বিদায় জানানোর জন্য অনেকে বড়ঘোপ ঘাট পর্যন্ত এসেছেন। যদি ও আমার পারিবারিক প্রয়োজনে বদলী হতে হয়েছে বদলী অর্ডার হওয়ার পর থেকেই প্রিয় মানুষগুলোর কান্না আমাকে পাথর বানিয়ে দিয়েছে…..কান্নার এই ঋণ আমি কী দিয়ে শোধ করবো জানি না….
আজ থেকে ০৮ বছর আগে একটা সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতা ছেড়ে আমার বাবার পরামর্শে প্রশাসন ক্যাডারের চাকুরীতে এসেছিলাম…
আজ মনে হচ্ছে বাবার কথা শুনে ভুল করিনি…
সাধারণ মানুষকে একটু ভালোবাসলে তার ফিডব্যাক এভাবে পাওয়া যায় তা আগে কখনো বুঝিনি…করোনা ভাইরাসের এই দুঃসময়েও বিদায় বেলা যাদের আয়োজন আর চোখের অশ্রু আমাকে চির দিনের জন্য ঋণী করে দিয়েছে…যারা আনুষ্ঠানিক বিদায় দিয়েছেন তাদের এই ভালোবাসার প্রতিদান কিভাবে শোধ করবো আমি জানি না…সবার এই ভালোবাসা আমাকে লজ্জিত করেছে… মনে হয়েছে তাদের জন্য আরো অনেক কিছু করার ছিল… আমি তাদের ভালোবাসার কাছে হেরে গিয়েছি…

৩৫০ দিন পূর্বে কুতুবদিয়া উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করি। ইউএনও হিসেবে এটি আমার ১ম পোস্টিং ছিল। অবহেলিত এই দ্বীপ উপজেলাটির শিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন, যোগাযোগ ইত্যাদির মান উন্নয়ন, সামাজিক সমস্যা প্রতিরোধ, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখা ইত্যাদি ক্ষেত্রে কাজ করার স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলাম(যদিও আমার কর্মকালের প্রায় অর্ধেক সময় বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর সাথে আমাদেরকে যুদ্ধ করতে হয়েছে)…
কতটুকু করতে পেরেছি তা মূল্যায়ন করার ভার কুতুবদিয়াবাসীর উপর ছেড়ে দিলাম!

কৃতজ্ঞতা জানাই মাননীয় সংসদ সদস্যের কাছে এই ৩৫০ দিন স্যারের অকুণ্ঠ স্নেহ ও ভালবাসায় আগলে রাখার জন্য,কৃতজ্ঞতা জানাই বিভাগীয় কমিশনার শ্রদ্ধেয় জনাব এ বি এম আজাদ স্যারকে…গভীর কৃতজ্ঞতা জানাই অসাধারণ নেতৃত্ব গুণের অধিকারী সৃজনশীল জেলা প্রশাসক জনাব মোঃ কামাল হোসেন স্যার ও জেলা প্রশাসন কক্সবাজারকে , যাদের দিক নির্দেশনা ও সহযোগিতার কারণে আজ আমি কুতুবদিয়া উপজেলাবাসীর কাছ থেকে এতোটা ভালোবাসা নিয়ে বিদায় নিতে পারছি…

কৃতজ্ঞতা জানাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, অফিসার ইনচার্জ, ভাইস চেয়ারম্যানবৃন্দ, সকল সরকারি/বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানবৃন্দ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে, বীর মুক্তিযোদ্ধাগণ, গণমাধ্যমকর্মী, সুশীল সমাজ, প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে কর্মরত অত্র উপজেলার কৃতি সন্তানগণ ও সর্বোপরি কুতুবদিয়া উপজেলার আপামরজনসাধারণকে…
কুতুবদিয়া উপজেলায় কাজ করতে গিয়ে সকলের সহযোগিতা পেয়েছি। বিশেষ করে করোনা মহামারীর এই সময়ে সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছি। আমার কথা বা কাজে কেউ কোন কষ্ট পেয়ে থাকলে আশা করি ভুলে যাবেন। ক্ষণস্থায়ী এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকুক মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসা। আমার এবং আমার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন।

পরিশেষে শেষের কবিতা উপন্যাসের সেই বিখ্যাত লাইনগুলোর ভাষায় বলতে চাই-
“তোমারে যা দিয়েছিনু সে তোমারই দান
গ্রহণ করেছ যত ঋণী তত করেছ আমায়
হে কুতুবদিয়া, বিদায়!!!”

ভালো থাকুক প্রিয় কুতুবদিয়া

আপনি সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ চট্টগ্রাম টুডে কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews
error: Content is protected !!