1. balaram.cox@gmail.com : balaram das : balaram das
  2. babuibasa@gmail.com : editor :
  3. news24nazrul@gmail.com : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  4. rokunkutubdia@gmail.com : reporter :
  5. rokunkutubdia@yahoo.com : Rokiot Ullah : Rokiot Ullah
শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
তৃণমূল নেতাকর্মীদের দাবী- এ কে ভুট্টো সিকদার হোক নৌকার প্রার্থী প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ কালারমারছড়ার নোনাছড়িতে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণের অভিযোগ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ হলদিয়াপালং ইউনিয়ন শাখার দ্বি-বার্ষিক কাউন্সিল সম্পন্ন উখিয়ায় নতুন ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমেদ উখিয়ার মানুষ সহযোগিতা পরায়ণ বলেছেন সদ্য বিদায়ী ইউএনও নিকারুজ্জামান চৌধুরী উখিয়ায় র‍্যাবের অভিযানে ১৯৬০০ পিস ইয়াবাসহ আটক দুই রোহিঙ্গা রোহিঙ্গা সংকট এবং করোনা মোকাবিলায় ইউএনও নিকারুজ্জামান ছিলেন খাঁটি দেশপ্রেমিক-এমপি শাহীন রাজাপালং ইউপির ৯ নং ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচনে একই পরিবারের মাতা-ছেলে-জামাতার মনোনয়ন

কক্স সাহেবের শহরে নানান জ্ঞানী-গুনি, ধনবান ও ক্ষমতাশালীর মাঝে একজন মানবিক কবিরের অবস্থান

  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ১২ জুন, ২০২০
  • ৪৩ জন সংবাদটি পড়েছেন

কক্স সাহেবের শহরে নানান জ্ঞানী-গুনি, ধনবান ও ক্ষমতাশালীর মাঝে একজন মানবিক কবিরের অবস্থান

কবির আহাম্মদ সওদাগরের জীবনীঃ
.
আলহাজ্ব কবির আহাম্মদ সওদাগর পিতাঃ হাজী অালী সওদাগর, মাতাঃ শাকেরা বেগম। জন্মঃ ১৯৪৬সালের ৬ জুলাই -মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়নের কামিতার পাড়া গ্রামে।

যতোদূর জানাযায় -শিশু জীবন থেকে দূরন্তপনা কবির স্থানীয় প্রাথমিক শিক্ষা অর্জনের পর আর কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ার সুযোগ হয়নি তার। দাদা ছিলেন তৎকালিন ব্রিটিশ শাসন আমলে গ্রাম্য মাতব্বর। জনাব কবির এর পিতা মরহুম হাজী আমির আলীর ছিলেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও তৎকালীন ইউনিয়ন কাউন্সিলের মেম্বার। শিক্ষার প্রাথমিক স্তর থেকে দূরন্তর প্রকৃতির কিশোর কবির যখন টগবগে যুবক তখন সে পড়াশোনা ছেড়ে সাগর পথে ১৯৫৮ সালে পাড়ি জমায় বার্মার রাজধানী রেঙ্গুনে। রেঙ্গুন থেকে ১৯৬০ সালে চলে যায় পাকিস্তানের রাজধানী করাচিতে। ওখানে গিয়ে ব্যবসা শুরু করেন। ১৯৬২সালে ভারতে গিয়ে পরবর্তী কয়েক বছর পর মাতৃত্বের টানে দেশে চলে এসে শুরু করেন মৎস্য ব্যবসা। মাছের বিপণন সরবরাহ এর ব্যবসাও চালান। অতিস্বল্প সময়ে নিজের ভাগ্য ও কঠোর পরিশ্রমের মাঝে জীবনে অর্থনৈতিক সফলতার দ্বার উন্মোচন হয় তার। দিনকে দিন পরিচিত হয়ে উঠে কক্সবাজার জেলা সহ চট্টগ্রাম শহর পেরিয়ে সমগ্র বাংলাদেশে।

এরিমধ্যে ব্যবসায়ীক সফলতা ও সামাজিক কল্যাণ মূলক কাজের জন্য শ্রেষ্ঠ সমাজসেবক হিসাবে স্বর্ন পদকও লাভ করে।

তিনি কক্সবাজারের একজন সফল, সৌখিন ও বাকশক্তি সম্পন্ন ব্যবসায়ী ছিলেন। কক্সবাজারে দেশের পর্যটন ও ভ্রমণ পিপাসু মানুষের চাহিদার কথা বিবেচনা করে গড়ে তুলেন আধুনিক দৃষ্টি নন্দন হোটেল সী কুইন (প্রাঃ)লিঃ। মৃত্যর পূর্ব সময়কালিন সময় পর্যন্ত এ হোটেল এর চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

কবির আহাম্মদ সওদাগর নিজে উচ্চ শিক্ষিত না হলেও কক্সবাজার শহরের অসংখ্য জ্ঞানগুনী, সম্পদশালী মানুষের ভিড়ে নিজের জমিতে নিজ উদ্যোগে গড়ে তুলেন অাধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কক্সবাজার প্রি-ক্যাডেট স্কুল এন্ড মডেল হাইস্কুল। সেই থেকে মৃত্যু অবদি এ স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

এছাড়াও কক্সবাজার মহিলা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা দাতা সদস্য, সৈকত বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, সাবেক সভাপতি ও বর্তমান সদস্য, কক্সবাজার ইসলামিয়া কামিল মাদরাসার আজীন সদস্য, মহেশখালীর কুতুবজোম মেহেরিয়াপাড়া জামে মসজিদের জমি দাতা ও প্রতিষ্ঠাতা।

অপরদিকে কক্সবাজার যান্ত্রিক ফিশিং বোট মালিক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সভাপতি, কক্সবাজার ফিশিং বোট মালিক সমিতি প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সভাপতি, কক্সবাজার আবাসিক হোটেল মালিক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, সৈকত বহুমূখি সমবায় সমিতি লি: প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, উত্তরণ গৃহায়ন সমবায় সমিতি লি: সাবেক সভাপতি, মহেশখালী চেয়ারম্যান এসোশিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন।

১৯৯৭ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত একটানা ১৩ বছর মহেশখালী উপজেলার কুতুবজোম ইউনিয়ন পরিষদের সততা, নিষ্ট। ন্যায়পরায়নতা ও সফলতার সাথে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।

২০১২সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের এর একান্ত অাস্থভাজন দলের এ নেতা জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন লাভ করেন।

মহেশখালীর জনসাধারনের বটবৃক্ষ হিসেবে পরিচিতি ছাড়াও কক্সবাজার জেলা জাতীয় পার্টির অভিভাবক ছিলেন তিনি। জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম -সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এবং জাপা কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ছিলেন তিনি।

সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদকে কবির অাহাম্মদ সওদাগর মহেশখালীতে নিয়ে এসে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ করেন।

কির্তিমান এ ব্যক্তি প্রায় ৭৪ বছর বয়সে আজ ১২জুন বেলা দেড়টার সময় কক্সবাজার শহরের নতুন বাহারছড়াস্থ নিজ বাস ভবনে স্ট্রোক করেন তিনি। পরে তাঁকে দ্রুত শহরের আল ফুয়াদ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এ মৃত্যুর মধ্যদিয়ে বহু মানুষের প্রিয় এ নেতার বর্ণাঢ্য জীবনের অবসান ঘটে।

প্রসঙ্গতঃ কক্সবাজারের নোংরা রাজনীতির রোসানলে পড়ে কবির অাহাম্মদ সওদাগর কয়েক বছর কারা বরণ করেন। কারাগারে থাকাকালিন প্রথম স্ত্রী মারা গেলে প্যারলোমুক্তি নিয়ে জানাযায় উপস্থিত হয়েছিলেন তিনি।

এদিকে আগামীকাল ১৩ জুন (শনিবার) সকাল ১০টায় কুতুবজোম ইউনিয়ন পরিষদের মাঠে জানাজার নামাজের পর কামিতার পাড়াস্থ বাবা মায়ের কবরের পাশে চির নিদ্রায় শায়িত করা হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানাগেছে।

মৃত্যুকালে আলহাজ্ব কবির আহাম্মদ সওদাগর ৪ পুত্র সন্তান ও ১ কন্যা সন্তান রেখে গেছেন। তার ৩য় পুত্র অালহাজ্ব মোশারফ হোসেন খোকন কুতুবজোমের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্বরত আছেন। আমি তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

আপনি সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ চট্টগ্রাম টুডে কর্তৃক সর্বসত্ব সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews
error: Content is protected !!